• শুক্রবার, ২২ অক্টোবর ২০২১, ০৮:৫৪ অপরাহ্ন
  • [gtranslate]
শিরোনামঃ
পিরোজপুর জেলা দাবা লীগের পুরস্কার বিতরনী অনুষ্ঠিত পিরোজপুর অগ্রণী ব্যাংক লিমিটেড মেইন রোড শাখা কর্তৃক “প্রবাসীর ঘরে ফেরা ঋণ বিতরণ” বঙ্গবন্ধু ও মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ভিত্তিক বই পড়া প্রতিযোগীতা এবং পুরষ্কার বিতরণ অনুষ্ঠিত পিরোজপুর জেলা ছাত্রলীগের উদ্যোগে শিশুদের মৌলিক শিক্ষার উদ্দেশ্যে ” শেখ রাসেল পাঠশালা “উদ্বোধন পিরোজপুর জেলা ছাত্রলীগের উদ্যোগে সাম্প্রদায়িক সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে সম্প্রীতি সমাবেশ ও শান্তি শোভাযাত্রা জাতীয় শুদ্ধাচার কৌশল কর্মপরিকল্পনা বাস্তবায়ন উপলক্ষে সুশাসন প্রতিষ্ঠার নিমিত্তে অংশীজনের অংশ গ্রহন সভা অনুষ্ঠিত পিরোজপুরে সম্প্রীতি সমাবেশ ও শান্তি শোভাযাত্রা অনুষ্ঠিত পিরোজপুরে নানা কর্মসূচীর মধ্য দিয়ে শেখ রাসেল দিবস পালিত পিরোজপুর মেডিকেল এন্ড ডেন্টাল স্টুডেন্ট এসোসিয়েশন এর আয়োজনে শতাধিক রোগীদের ফ্রি মেডিকেল ক্যাম্প পিরোজপুরে শূন্য থেকে সফল উদ্যোক্তা এম এ মুন্না

পিরোজপুর জেলা হাসপাতালে জায়গা না থাকায় মেঝেতে রোগীরা : পর্যাপ্ত ডাক্তার না থাকার অভিযোগ

admin / ৭৩ জন দেখেছেন
প্রকাশের সময়ঃ মঙ্গলবার, ২২ জুন, ২০২১

পিরোজপুর জেলা হাসপাতালে রোগীদের ভীষন চাপ থাকায় মেঝেতে জায়গা হচ্ছে না অসুস্থ্য রোগীদের। আজ মঙ্গলবার সকাল থেকে জেলা হাসপাতালের বিভিন্ন ওয়ার্ডে রোগীদের অনেক বেশি চাপে মেঝেতেও জায়গা পাচ্ছে না রোগীরা। ফলে বাধ্য হয়ে অনেক রোগী বারান্দায় পড়ে আছে। ১০০ শয্যা বিশিষ্ট্য হাসপাতালে বর্তমানে ১৩৩ রোগী বিভিন্ন ওয়ার্ডে ভর্তি রয়েছেন। ফলে রোগী নিয়ে হিমশিম খাচ্ছে হাসপাতাল কর্তপক্ষ। হাসপাতালটিতে শুধু জায়গা সংঙ্কট নয় রয়ে পর্যাপ্ত চিকিৎসকের অভাব।

জেলা স্বাস্থ্যবিভাগের মতে ১৯৮১ সালে মহকুমা হাসপাতালটি ৫০ শয্যা নিয়ে যাত্রা শুরু করলেও পরবর্তীতে বিএনপি সরকারের আমলে সেটি ১০০ শয্যায় উন্নিত করা হয়। ২০২০ সালের প্রথম দিকে পিরোজপুর সদর হাসপাতাল থেকে জেলা হাসপাতালে রুপান্তর করা করে ২৫০ শয্যায় উন্নিত করা হয়। বর্তমানে ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট্য হাসপাতালের কাজ চলমান থাকলেও মুল হাসপাতালে রোগীদের জন্য জায়গা দিতে পারছে না কতৃপক্ষ এবং নেই পর্যাপ্ত ডাক্তার। জেলা হাসপাতাল হিসেবে ৩২ জন ডাক্তার থাকার কথা থাকলেও মাত্র ১২ জন ডাক্তার দিয়ে কোন মতে চলছে জেলা হাসপাতাল। সদও উপজেলা স্বাস্থ্য কম্পেলেক্স থেকে ধার করে চলছে জেলা হাসপাতাল। এখানে নেই কোন বিশেষজ্ঞ ডাক্তার। মেডিসিন, গাইনী ও ইনেস্তেশিয়ার মাত্র ৩ জন ডাক্তার দিয়েই কাজ চালিয়ে নেয়া হচ্ছে। যেখানে কমপক্ষে ২০ জন ডাক্তার থাকার কথা সেখানে সব মিলিয়ে রয়েছে মাত্র ১২ জন ডাক্তার। ফলে কয়েকজন ডাক্তার দিয়েই চালিয়ে নেয়া হচ্ছে পিরোজপুর জেলা হাসপাতালের সকল কার্যক্রম।

জেলা হাসপাতালে চিকিৎসা নিতে আসা রোগীরা জানান, করোনা মাহামরীর সময় পিরোজপুর জেলা হাসপাতালে নেই বেড নেই ডাক্তার ভোগান্তিতে পড়েছে সাধারণ রোগী ও স্বজনরা। দূও থেকে আসা অনেক গুরুত্বপূর্ণ রোগীদের জায়গা হচ্ছে না মেঝেতে। কোন মতে চিকিৎসা দিয়ে অনেককে রেফার করা হচ্ছে খুলনা ও বরিশালে। করোনা মহামারীর মধ্যে এটি আর একটি ভোগান্তির কারন হয়ে দাড়িয়েছে।

সিভিল সার্জন ডা: মো: হাসনাত ইউসুফ জাকী জানান, কয়েকদিন ধরে করোনা রোগীর চাপ বেশি রয়েছে। প্রতিদিনই প্রায় রোগীর সংখ্যা বৃদ্ধি পাচ্ছে। ডায়রিয়া, মেডিসিন, অপারেশন, গাইনী ও আহত রোগীদের সংখ্যা বৃদ্ধির কারনে হাসপাতালে জায়গার সংঙ্কট দেখা দিয়েছে। তবে সব সময় এমনটা হয় না মাঝে মধ্যে এমটা হলেও আমরা চিকিৎসা ব্যবস্থার কোন ত্রুটি করছিনা। করোনার কারনে একটু চাপ বেড়েছে আমাদের পর্যাপ্ত অক্সিজেন ও সেলাইন রয়েছে।

 


একই ধরনের আরও খবর
error: Content is protected !!
error: Content is protected !!