• সোমবার, ২৫ অক্টোবর ২০২১, ১২:০৪ পূর্বাহ্ন
  • [gtranslate]
শিরোনামঃ
রূপালী ব্যাংক লিমিটেড এর বঙ্গবন্ধু পরিষদ এর পক্ষ থেকে বঙ্গবন্ধুর সমাধিতে পুষ্পস্তবক অর্পণ পিরোজপুর সদর উপজেলার সাতটি ইউনিয়নে কর্মী সভা সম্পন্ন করেছে সদর উপজেলা ছাত্রদল পিরোজপুর জেলা দাবা লীগের পুরস্কার বিতরনী অনুষ্ঠিত পিরোজপুর অগ্রণী ব্যাংক লিমিটেড মেইন রোড শাখা কর্তৃক “প্রবাসীর ঘরে ফেরা ঋণ বিতরণ” বঙ্গবন্ধু ও মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ভিত্তিক বই পড়া প্রতিযোগীতা এবং পুরষ্কার বিতরণ অনুষ্ঠিত পিরোজপুর জেলা ছাত্রলীগের উদ্যোগে শিশুদের মৌলিক শিক্ষার উদ্দেশ্যে ” শেখ রাসেল পাঠশালা “উদ্বোধন পিরোজপুর জেলা ছাত্রলীগের উদ্যোগে সাম্প্রদায়িক সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে সম্প্রীতি সমাবেশ ও শান্তি শোভাযাত্রা জাতীয় শুদ্ধাচার কৌশল কর্মপরিকল্পনা বাস্তবায়ন উপলক্ষে সুশাসন প্রতিষ্ঠার নিমিত্তে অংশীজনের অংশ গ্রহন সভা অনুষ্ঠিত পিরোজপুরে সম্প্রীতি সমাবেশ ও শান্তি শোভাযাত্রা অনুষ্ঠিত পিরোজপুরে নানা কর্মসূচীর মধ্য দিয়ে শেখ রাসেল দিবস পালিত

নৌকা প্রতীকের চেয়ারম্যান প্রার্থী মো.মোশারেফ হোসেন খান বাংলাদেশ ছাত্রলীগের সভাপতি ও সম্পাদকের কাছে খোলা চিঠি

admin / ৮২ জন দেখেছেন
প্রকাশের সময়ঃ বুধবার, ১৬ জুন, ২০২১

নাজিরপুর উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক ও নৌকা প্রতীকের চেয়ারম্যান প্রার্থী মো.মোশারেফ হোসেন খান বাংলাদেশ ছাত্রলীগের সভাপতি ও সম্পাদকের কাছে খোলা চিঠি দিয়েছেন। মঙ্গলবার চেয়ারম্যান প্রার্থী মো.মোশারেফ হোসেন খান বাংলাদেশ ছাত্রলীগের সভাপতি ও সম্পাদকের কাছে খোলা চিঠি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে প্রকাশ করেন।

খোলা চিঠিতে তিনি বলেন, প্রিয় জয় -লেখক, সভাপতি-সাধারণ সম্পাদক বাংলাদেশ ছাত্রলীগ। আমাদের অস্তিত্ব সংগ্রামে মিশে থাকা সংগঠন,আদর্শিক অঙ্গীকারে জীবন বাজি রাখা সংগঠনের দায়িত্ব তোমাদের হাতেই অর্পিত। সেই ১৯৬২ সালের শিক্ষা আন্দোলনের সময় স্কুলে প্রথম শুনি ছাত্রলীগের নাম।১৯৬৯ সালে সারাদেশে আন্দোলন হয়”জেলের তালা ভাঙবো,শেখ মুজিবকে আনব”। ছোটবড় সব ছেলেরা আন্দোলন করে,আমিও যোগ দিলাম ছাত্রলীগের মিছিলে। তখন এত কাগজ কলম ছিল না,এত পোস্ট পজিশন ছিল না,বুক ভরা সাহস ছিল আর ছিল মুজিবের প্রতি ভালোবাসা। কলেজ শেষ করে বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি হয়ে মনির ভাই (মনিরুল হক চৌধুরি)ও প্রধান ভাইয়ের (শফিউল আলম প্রধান) নেতৃত্ব আমরা ছাত্রলীগে যোগ দেই ও নানা গঠনমূলক কাজে অংশগ্রহন করি।

১৯৭৫ সালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে এস.এম হল শাখা ছাত্রলীগের সদস্য থাকা অবস্থায় ১৫ আগস্ট আমরা মিছিল নিয়ে ধানমন্ডি যাওয়ার পথে পুলিশ আটকে দেয়,ধানমন্ডি ২ এ। এরপরে পড়াশোনা শেষ করে আব্বার ইচ্ছায় গ্রামে ফিরে এসেছিলাম বঙ্গবন্ধুর আদর্শের প্রতি নতুন করে অবিচল হতে। অনেক চড়াই উৎরাই পেরিয়ে ২০০৫ সালে নাজিরপুর উপজেলা আওয়ামিলীগের যুগ্ম আহ্বায়ক হওয়ার পরে আরো সাংগঠনিক ভাবে ছাত্রলীগকে একত্রিত করেছি,বি এন পি জামাতের দু:সময়ে মামলার আসামি হলে দিনের পর দিন কোর্টের বারান্দায় দাড়িয়ে থেকে ওদের জামিনের ব্যবস্থা করিয়েছি। রক্তে মেশা অনুভূতি থেকে আমি আমার দুই মেয়েকে ছাত্রলীগে পাঠিয়েছিলাম আদর্শ আর নীতিতে অটল থেকে আপোষহীন বেড়ে ওঠার সংগ্রাম শিখবে বলে।মৌলী ঢাকা মহানগরে পোস্ট পাওয়ার পর শুনেছিলাম এখন নাকি সবাই রাজনীতিতে আসে টাকার জন্য ,তখনই ওকে বলেছিলাম জায়গা বিক্রি করে তোমাকে টাকা আমি পাঠাবো কিন্তু রাজনীতির জন্য কারো কাছে হাত পাতবে না। শুনেছি ও অনেক ভালো কর্মী ছিল,শুনতাম ওর কেন্দ্রীয় কমিটিতে একটা পোস্ট পাওয়ার তীব্র আকাংঙ্খার কথা।আমরা সাবেক হয়েছি অনেক আগে,বয়সের পরিক্রমায় ছাত্রলীগ থেকে এখন আওয়ামীলীগে যুক্ত হয়েছি কিন্তু আমাদের সেই স্বপ্নের যে বীজ আমরা বুনেছিলাম তা এখন পরিপক্কতায় রূপ নেওয়ার কথা ছিলো ।

স্বপ্নভংগের মতো দু:খ ভারাক্রান্ত মনে আজ আমার সেই ছাত্রলীগকে দেখি ভিন্নচিত্রে,এরা এখন ক্ষমতার রাজনীতিতে নীতির সাথে আপোষ করে,দলের ভিতর উপদল গড়ে তোলে।কথাটার প্রমান পেলাম নাজিরপুরের ছাত্রলীগের কমিটি ভাঙার পরই। এই ছোট ছোট ছেলেমেয়েগুলো মিছিল মিটিং এর নামে নেতার বাসায় হাজিরা দেয়,এক নেতার কাছে আরেক নেতার সমালোচনা করে সুযোগের পিছনে ছুটে বেড়ায়।এদের দেখে ভাবি,আমরাও তো বঙ্গবন্ধুর ছাত্রলীগই করতাম।এটাই কি সেই ছাত্রলীগ?? যারা আমার সন্তান সমতূল্য হয়ে আমাদের হেয় প্রতিপন্ন করতে দ্বিধাবোধ করে না, ইউনিয়ন নির্বাচনে প্রকাশ্য দিবালোকে নৌকার বিরোধিতা করে-আপার সিদ্ধান্তকে প্রশ্নবিদ্ধ করতে চায় তখন লজ্জায়,ঘৃণায় আমরা কুঁকড়ে যাই,আমরা ভুলে যেতে চাই আমরা সেই দু:সময়ের ছাত্রলীগের সাবেক কর্মী ছিলাম। ‘আমার রেখে আসা ছাত্রলীগ তো এমন ছিলো না। তোমাদের হাতে আদৌ ভালো আছে তো আমাদের সেই বঙ্গবন্ধুর ছাত্রলীগ’

এ বিষয়ে উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক ও নৌকা প্রতীকের চেয়ারম্যান প্রার্থী মো.মোশারেফ হোসেন খান বলেন আমি ছাত্র জীবনে ছাত্রলীগের রাজনীতির সাথে জড়িত ছিলাম। দির্ঘদিন ধরে নাজিরপুর সদর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান হিসেবে দায়িত্ব পালন করে আসছি। আসন্ন ইউপি নির্বাচনে প্রকাশ্য দিবালোকে নৌকার বিরোধিতা করতেছে উপজেলা ছাত্রলীগের আহবায়ক তাপস চৌধুরী ও যুগ্ম আহবায়ক আল আমিন সেখ। তারা স্বতন্ত্র প্রার্থী চঞ্চল কান্তি বিশ্বাসের প্রচারনা করছে প্রকাশে। আমার এবং নৌকা সমর্থিত লোকজনদের বিরোধিতা করে নৌকার ভোটারদের ভয় ভীতি দেখাচ্ছে।


একই ধরনের আরও খবর
error: Content is protected !!
error: Content is protected !!