• সোমবার, ২৫ অক্টোবর ২০২১, ১২:৪১ পূর্বাহ্ন
  • [gtranslate]
শিরোনামঃ
পিরোজপুরে কেন্দ্রিয় ছাত্রদলের সাবেক সাধারণ সম্পাদক একরামুল হাসান মিন্টু’র মুক্তির দাবিতে বিক্ষোভ মিছিল রূপালী ব্যাংক লিমিটেড এর বঙ্গবন্ধু পরিষদ এর পক্ষ থেকে বঙ্গবন্ধুর সমাধিতে পুষ্পস্তবক অর্পণ পিরোজপুর সদর উপজেলার সাতটি ইউনিয়নে কর্মী সভা সম্পন্ন করেছে সদর উপজেলা ছাত্রদল পিরোজপুর জেলা দাবা লীগের পুরস্কার বিতরনী অনুষ্ঠিত পিরোজপুর অগ্রণী ব্যাংক লিমিটেড মেইন রোড শাখা কর্তৃক “প্রবাসীর ঘরে ফেরা ঋণ বিতরণ” বঙ্গবন্ধু ও মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ভিত্তিক বই পড়া প্রতিযোগীতা এবং পুরষ্কার বিতরণ অনুষ্ঠিত পিরোজপুর জেলা ছাত্রলীগের উদ্যোগে শিশুদের মৌলিক শিক্ষার উদ্দেশ্যে ” শেখ রাসেল পাঠশালা “উদ্বোধন পিরোজপুর জেলা ছাত্রলীগের উদ্যোগে সাম্প্রদায়িক সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে সম্প্রীতি সমাবেশ ও শান্তি শোভাযাত্রা জাতীয় শুদ্ধাচার কৌশল কর্মপরিকল্পনা বাস্তবায়ন উপলক্ষে সুশাসন প্রতিষ্ঠার নিমিত্তে অংশীজনের অংশ গ্রহন সভা অনুষ্ঠিত পিরোজপুরে সম্প্রীতি সমাবেশ ও শান্তি শোভাযাত্রা অনুষ্ঠিত

পিরোজপুরের নেছারাদে একটি সংখ্যালঘু পরিবারের বিরুদ্ধে সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি বিনষ্টের অভিযোগ

admin / ৯৭ জন দেখেছেন
প্রকাশের সময়ঃ শুক্রবার, ২১ মে, ২০২১

পিরোজপুর জেলার নেছারাবাদ উপজেলায় একটি সংখ্যালঘু পরিবার কর্তৃক এক মুসলিম পরিবারের সদস্যদের বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলা দায়ের ও নানাভাবে হয়রানী করাসহ তাদের ক্রয়কৃত ভুমিতে মন্দির স্থাপন করে উদ্দেশ্য প্রণোদিতভাবে এলাকায় সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি বিনষ্টের পায়তারার অভিযোগ পাওয়া গেছে। শুক্রবার পিরোজপুর প্রেসক্লাবে এক সংবাদ সম্মেলনে ভুক্তভোগী মুসলিম পরিবারের পক্ষে উপজেলার সেহাঙ্গল গ্রামের সাবেক ইউপি সদস্য আব্দুল মজিদ খান লিখিত বক্তব্যে একই গ্রামের মৃত কুমুদ বিহারী মন্ডলের পুত্র-কন্যা নিরঞ্জন মন্ডল ও মিনতি রানী মন্ডলের বিরুদ্ধে ওই অভিযোগ করেন।

লিখিত বক্তব্যে মজিদ খানের অভিযোগ ১৯৯১ সালে কুমুদ বিহারীর কাছ থেকে তার স্ত্রীর ক্রয়কৃত ৫৫ শতক ভুমিতে যাতে দখলে যেতে না পারে সেজন্য মিনতি রানী তার ভাই মনোরঞ্জনের স্ত্রীকে বাদী করে মজিদ খানসহ ১২ জনের বিরুদ্ধে মনোরঞ্জনকে অপহরণ করা হয়েছে বলে জিআর ৬/৯৪ নং মামলা, মিনতির বোন আরতি মন্ডলকে অপহরন করা হয়েছে বলে মিনতি বাদী হয়ে জিআর ১০০/৯৫ নং মামলা ও মিনতিকে শ¬ীলতা হানি করা হয়েছে এমন অভিযোগে সিআর ১৫৯/৯৪ নং মামলা করেন। মিনতির ভাই মনোরঞ্জন ২০০৫ সালে ৪৯ শতক ভুমি মজিদ খানের ছেলে জামাল খানের কাছে বিক্রি করলে ওই দলিল জাল উলে¬খে মিনতি তার অপর ভাই নিরঞ্জনকে দিয়ে মজিদ ও তার ছেলে জামালের বিরুদ্ধে ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে জিআর ১৬/১০ এবং দেওয়ানী আদালতে দেং ৮/১০ নং মামলা করেন। বিচারে ফৌজদারী মামলাগুলো মিথ্যা প্রমানিত হলে আসামীরা খালাস পায়।

ওইসব মিথ্যা মামলায় খালাস পাওয়ার পর মজিদের স্ত্রী ও পুত্রের ক্রয়কৃত ভুমিতে মিনতি একটি মন্দির স্থাপনের পায়তারায় লিপ্ত রয়েছে বলে আঃ মজিদ তার লিখিত বক্তব্যে অভিযোগ করেন। তিনি তার অভিযোগে বলেন তার বিরুদ্ধে মিনতি ওই মিথ্যা মামলাসহ তাকে ও তার পরিবারকে নানাভাবে দু’যুগেরও বেশী কাল ধরে হয়রানী করে আসতে থাকলেও দৈনিক সমকাল পত্রিকায় তার বিরুদ্ধে মিথ্যা ও ভিত্তিহীন অভিযোগে খবর প্রকাশিত হয়েছে।

এব্যাপারে মিনতির সঙ্গে মোবাইল ফোনে কথা হলে তিনি স্বীকার করেন তাদের দায়েরকৃত ফৌজদারী মামলায় মজিদসহ সকল আসামী খালাস পায়। তবে তিনি জানান দেওয়ানী মোকদ্দমাটি বিচারাধীন।

 

 


একই ধরনের আরও খবর
error: Content is protected !!
error: Content is protected !!