• শুক্রবার, ২২ অক্টোবর ২০২১, ১২:৫৪ পূর্বাহ্ন
  • [gtranslate]
শিরোনামঃ
পিরোজপুর জেলা দাবা লীগের পুরস্কার বিতরনী অনুষ্ঠিত পিরোজপুর অগ্রণী ব্যাংক লিমিটেড মেইন রোড শাখা কর্তৃক “প্রবাসীর ঘরে ফেরা ঋণ বিতরণ” বঙ্গবন্ধু ও মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ভিত্তিক বই পড়া প্রতিযোগীতা এবং পুরষ্কার বিতরণ অনুষ্ঠিত পিরোজপুর জেলা ছাত্রলীগের উদ্যোগে শিশুদের মৌলিক শিক্ষার উদ্দেশ্যে ” শেখ রাসেল পাঠশালা “উদ্বোধন পিরোজপুর জেলা ছাত্রলীগের উদ্যোগে সাম্প্রদায়িক সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে সম্প্রীতি সমাবেশ ও শান্তি শোভাযাত্রা জাতীয় শুদ্ধাচার কৌশল কর্মপরিকল্পনা বাস্তবায়ন উপলক্ষে সুশাসন প্রতিষ্ঠার নিমিত্তে অংশীজনের অংশ গ্রহন সভা অনুষ্ঠিত পিরোজপুরে সম্প্রীতি সমাবেশ ও শান্তি শোভাযাত্রা অনুষ্ঠিত পিরোজপুরে নানা কর্মসূচীর মধ্য দিয়ে শেখ রাসেল দিবস পালিত পিরোজপুর মেডিকেল এন্ড ডেন্টাল স্টুডেন্ট এসোসিয়েশন এর আয়োজনে শতাধিক রোগীদের ফ্রি মেডিকেল ক্যাম্প পিরোজপুরে শূন্য থেকে সফল উদ্যোক্তা এম এ মুন্না

পিরোজপুরে বিকাশ সেন্টারে গ্রাহক সেবা নিয়ে ব্যাপক ভোগান্তির অভিযোগ মানা হচ্ছে না সামাজিক দূরত্ব

admin / ১১০ জন দেখেছেন
প্রকাশের সময়ঃ বুধবার, ৫ মে, ২০২১

পিরোজপুরে লেনদেনের অন্যতম বেসরকারী মাধ্যম বিকাশ সেন্টারে গ্রাহক সেবা নিয়ে ব্যাপক ভোগান্তির অভিযোগ রয়েছে। জেলার ৭ টি উপজেলায় রয়েছে বিকাশের কাস্টমার সার্ভিস প্রত্যেক কাস্টমার সার্ভিসেই গ্রহকদের ভোগান্তির সমান অভিযোগ রয়েছে। বয়স্ক ভাতা, প্রতিবন্ধি ভাতা, প্রধানমন্ত্রীর ত্রান সহায়তার টাকা সহ প্রায় সকল লেনদেন কার্যক্রম বিকাশের মাধ্যমে পরিচালিত হচ্ছে। তাই প্রতিদিনই বাড়ছে বিকাশে একাউন্ট খোলার চাপ ফলে বৃদ্ধ, দিনমজুর, রিক্সাচালক, সাধারণ মানুষ সহ ভোগান্তিতে পড়েছে বিভিন্ন শ্রেণী পেশার মানুষ। প্রতিদিন সকাল ১০টায় বিকাশ কাস্টমার কেয়ার খোলা হলেও সকাল ৮টা থেকে বিকাশ কাস্টমার কেয়ারের সামনে সিরিয়াল দিতে দেখা যায় দূর দুরান্তের অনেক মানুষকে। সকাল ১০টা থেকে বিকেল সাড়ে ৩টা পর্যন্ত প্রায় শতাধিক জনকে সেবা প্রদান করা হলেও প্রতিদিন সিরিয়াল দিতে দেখা যায় কয়েক শতাধিক মানুষকে। একই ব্যাক্তিকে একদিনে গ্রাহক সেবা না পেয়ে ঘুরতে হচ্ছে দিনের পর দিন।

পিরোজপুর শহরের কৃষ্ণচুড়া চত্তরে মাত্র ১৫ ফুট দৈঘ্য ও ১০ ফুট প্রস্তের একটি কক্ষে দেয়া হচ্ছে কয়েক শতাধির বিকাশ গ্রাহকদের সেবা। ফলে বিকাশের কাস্টমার সার্ভিস সেন্টারের ভেতরে জায়গা না পেয়ে প্রচন্ড রোদে রাস্তায় লাইন দিয়ে দাঁড়িয়ে থেকে সেবা নিতে হচ্ছে গ্রাহকদের। রমাজানের কারনে অনেক বয়স্ক গ্রাহকই অসুস্থ্য হয়ে পড়ার অভিযোগও রয়েছে। এসকল সমস্যার পরেও প্রতিদিন সকাল থেকে শুরু করে ঘন্টার পর ঘন্টা রাস্তায় লাইন দিয়ে দাঁড়িয়ে থাকতে দেখা যায় গ্রাহকদের।

সেবার মান ও সামাজিক দূরত্বের বিষয়ে জানতে চাই তেমন কোন উত্তর দিতে পারেন নি বিকাশ কতৃপক্ষ। এ ব্যাপারে বিকাশ সেন্টারের ফ্রন্ট অফিসার আমজাদ হোসেন রকি জানান, লকডাউর ও রমজানের কারনে আমরা সকাল ১০টা থেকে বিকেল সাড়ে ৩টা পর্যন্ত অফিস খোলা রেখে গ্রাহকদের সেবা দিয়ে যাচ্ছি। যেহেতু আমরা পুরো দিন আগের মত সেবা দিতে পারছি না তাই গ্রাহকদেও কিছুটা চাপ রয়েছে।

গ্রাহক শাহানা বেগম জানান, রমজানের মধ্যে রোজা রেখে সকাল থেকে অপেক্ষা করছি কখন সিরিয়াল পাবো। বিকাশ সেন্টারে নেই পর্যাপ্ত বসার ব্যবস্থা তাই বাধ্য হয়ে ঘন্টার পর ঘন্টা দাঁড়িয়ে থাকতে হচ্ছে। আমরা এই ভোগান্তির অবসান চাই।

গ্রাহক আফসার মিয়া বলেন, গতকাল এসে সারাদিন দাঁড়িয়ে থেকেও সেবা না পেয়ে চলে গেছি আজকেও ঘন্টার পর ঘন্টা দাঁড়িয়ে আছি। এটা কোন সেবার মাধ্যম হতে পাওে না। মানুষের কোন মূল্যায়ন নেই একজন মানুষ কিভাবে এতজনকে সেবা দিবে। বিকাশ সেন্টারে লোক বাড়ানো দরকার।

বিকাশ হেড অব পাবলিক কমিউনিকেশন অফিসার সামসুদ্দিন হায়দার ডালিম এর কাছে এ বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি কোন প্রকার তথ্য দিতে রাজি হননি। তিনি বলেন এ বিষয়ে পরে ধারনা দিতে পারবো এখন কিছু বলতে পারছি না।

সহকারী কমিশনার ও বিজ্ঞ এক্সিকিউটিভ ম্যাজিস্ট্রেট (এনডিসি) আল ইমরান খাঁন জানান, বিকাশ সেন্টারে গ্রাহকদের ভোগান্তির বিষয়টি মাত্র শুনেছি। বর্তমানে অকেকেই বিকাশের মাধ্যমে লেনদেন পরিচালনা করছেন। আমরা পিরোজপুরের বিকাশ কতৃপক্ষের সাথে কথা বলবো যেনো তারা সেবার মান উন্নয়ন করে গ্রাহকদের সেবা প্রদান করে।

 


একই ধরনের আরও খবর
error: Content is protected !!
error: Content is protected !!