• শনিবার, ২৩ অক্টোবর ২০২১, ১০:৫৮ পূর্বাহ্ন
  • [gtranslate]
শিরোনামঃ
পিরোজপুর জেলা দাবা লীগের পুরস্কার বিতরনী অনুষ্ঠিত পিরোজপুর অগ্রণী ব্যাংক লিমিটেড মেইন রোড শাখা কর্তৃক “প্রবাসীর ঘরে ফেরা ঋণ বিতরণ” বঙ্গবন্ধু ও মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ভিত্তিক বই পড়া প্রতিযোগীতা এবং পুরষ্কার বিতরণ অনুষ্ঠিত পিরোজপুর জেলা ছাত্রলীগের উদ্যোগে শিশুদের মৌলিক শিক্ষার উদ্দেশ্যে ” শেখ রাসেল পাঠশালা “উদ্বোধন পিরোজপুর জেলা ছাত্রলীগের উদ্যোগে সাম্প্রদায়িক সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে সম্প্রীতি সমাবেশ ও শান্তি শোভাযাত্রা জাতীয় শুদ্ধাচার কৌশল কর্মপরিকল্পনা বাস্তবায়ন উপলক্ষে সুশাসন প্রতিষ্ঠার নিমিত্তে অংশীজনের অংশ গ্রহন সভা অনুষ্ঠিত পিরোজপুরে সম্প্রীতি সমাবেশ ও শান্তি শোভাযাত্রা অনুষ্ঠিত পিরোজপুরে নানা কর্মসূচীর মধ্য দিয়ে শেখ রাসেল দিবস পালিত পিরোজপুর মেডিকেল এন্ড ডেন্টাল স্টুডেন্ট এসোসিয়েশন এর আয়োজনে শতাধিক রোগীদের ফ্রি মেডিকেল ক্যাম্প পিরোজপুরে শূন্য থেকে সফল উদ্যোক্তা এম এ মুন্না

ইন্দুরকানীতে স্বতন্ত্র প্রার্থীর মনোনয়ন পত্র বাতিলের সার্টিফাই কপি দিলেন না উপজেলা নির্বাচন অফিসার

admin / ১৫১ জন দেখেছেন
প্রকাশের সময়ঃ বৃহস্পতিবার, ২৫ মার্চ, ২০২১

পিরোজপুরের ইন্দুরকানী উপজেলার বালিপাড়া ইউপি নির্বাচনে স্বতন্ত্র প্রার্থীর মনোনয়ন পত্র বাতিলের সার্টিফাই কপি দিলেন না উপজেলা নির্বাচন অফিসার। আর ওই সার্টিফাই কপি চেয়ে জেলা রিটানিং অফিসারের কাছে আবেদন করেছেন ওই স্বতন্ত্র প্রার্থী।
স্বতন্ত্র প্রার্থী হাবিবুর রহমান জানান, গত ১৯ মার্চ বিকালে উপজেলার বালিপাড়া ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনের মনোনয়ন যাচাই বাছাই ছিল। কিন্তু ওই বাছাইতে তার প্রার্থীতা বাতিল করতে তার সমর্থনকারি এনায়েত শিকদারকে বালিপাড়া ইউনিয়নের বর্তমান চেয়ারম্যান ও নৌকা প্রতীকের প্রার্থী কবির বয়াতীর লোকজন অপহরন করে নিয়ে যায়। আর ওই সমর্থন কারীর স্বাক্ষরে গড়মিল আছে বলে উপজেলা নির্বাচন অফিসার ওই প্রার্থীর মনোনয়ন বাতিল করেন।
জানা গেছে, সমর্থনকারী অপহরনের বিষয়ে স্বতন্ত্র প্রার্থী নির্বাচন অফিসারের কাছে একটি লিখিত অভিযোগ দাখিল করলে নির্বাচন অফিসার তা ইন্দুরকানী থানার অফিসার ইনর্চাজের কাছে পাঠান । অপহরনের সাড়ে তিন ঘন্টা পর ইন্দুরকানী থানা পুলিশ অভিযান চালিয়ে অপহৃত সমর্থনকারী এনায়েতকে উদ্ধার করেন।
স্বতন্ত্র প্রার্থী হাবিবুর রহমান অভিযোগ করে জানান, গত সোমবার সকালে তিনি নির্বাচন অফিসারের কাছে তার মনোনয়ন বাতিলের সার্টিফাই কপি আনতে গেলে নির্বাচন অফিসার কৌশলে অফিস থেকে বেরিয়ে চলে যান। পরে আমার লোকজন কয়েক ঘন্টা অপেক্ষা করে অফিসের কারো কাছ থেকে কোন রকম সহযোগীতা না পেয়ে তারা চলে আসেন। উপজেলা নির্বাচন অফিসার সময়ের কালক্ষেপন করতে ও প্রতিদ্বন্দী প্রার্থীর পক্ষ নিয়ে আমার প্রার্থীতা বাতিল করেছেন। তিনি আরো জানান, নির্বাচন অফিসার ষড়যন্ত্র করে বিকাল সারে চারটার দিকে অফিসে আসেন । যাতে করে আমার মনোনয়ম বাতিলের সার্টিফাই কপি তুলতে না পারি ও আদালতে আপিল করতে না পারি। তিনি জানান, নির্বাচন অফিসার নৌকার প্রার্থীকে বিনা প্রতিদ্বন্দীতায় বিজয়ী করতে এ টালবাহানা করছেন।
এবিষয়ে উপজেলা নির্বাচন অফিসার এএসএম রোকনুজ্জামান বলেন, আমি যখন অফিসে ছিলাম তিনি তখন অফিসে আসেননি। আর সে যখন অফিসে এসছিলো তখন আমি অফিসে ছিলাম না।


একই ধরনের আরও খবর
error: Content is protected !!
error: Content is protected !!