• শনিবার, ২৩ অক্টোবর ২০২১, ১০:৫৮ পূর্বাহ্ন
  • [gtranslate]
শিরোনামঃ
পিরোজপুর জেলা দাবা লীগের পুরস্কার বিতরনী অনুষ্ঠিত পিরোজপুর অগ্রণী ব্যাংক লিমিটেড মেইন রোড শাখা কর্তৃক “প্রবাসীর ঘরে ফেরা ঋণ বিতরণ” বঙ্গবন্ধু ও মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ভিত্তিক বই পড়া প্রতিযোগীতা এবং পুরষ্কার বিতরণ অনুষ্ঠিত পিরোজপুর জেলা ছাত্রলীগের উদ্যোগে শিশুদের মৌলিক শিক্ষার উদ্দেশ্যে ” শেখ রাসেল পাঠশালা “উদ্বোধন পিরোজপুর জেলা ছাত্রলীগের উদ্যোগে সাম্প্রদায়িক সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে সম্প্রীতি সমাবেশ ও শান্তি শোভাযাত্রা জাতীয় শুদ্ধাচার কৌশল কর্মপরিকল্পনা বাস্তবায়ন উপলক্ষে সুশাসন প্রতিষ্ঠার নিমিত্তে অংশীজনের অংশ গ্রহন সভা অনুষ্ঠিত পিরোজপুরে সম্প্রীতি সমাবেশ ও শান্তি শোভাযাত্রা অনুষ্ঠিত পিরোজপুরে নানা কর্মসূচীর মধ্য দিয়ে শেখ রাসেল দিবস পালিত পিরোজপুর মেডিকেল এন্ড ডেন্টাল স্টুডেন্ট এসোসিয়েশন এর আয়োজনে শতাধিক রোগীদের ফ্রি মেডিকেল ক্যাম্প পিরোজপুরে শূন্য থেকে সফল উদ্যোক্তা এম এ মুন্না

পিরোজপুরে তৈল খরচ ভয়ে বৈদ্যুতিক জেনারেটর চালায় না জেলা হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ : চরম ভোগান্তিতে রোগীরা

admin / ১৫৫ জন দেখেছেন
প্রকাশের সময়ঃ মঙ্গলবার, ২৩ মার্চ, ২০২১

পিরোজপুর জেলা হাসপাতালে তৈল খরচ এর জন্য বৈদ্যুতিক জেনারেটরের না চালানো অভিযোগ পাওয়া গেছে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের বিরুদ্ধে। পিরোজপুর জেলা হাসপাতালের বিদ্যুৎ সরবরাহ না থাকলে বিকল্প হিসেবে রোগীদের জন্য বৈদ্যুতিক জেনারেটের ব্যবস্থা আছে। কিন্তু পিরোজপুর জেলা হাসপাতালে দীর্ঘ কাল যাবদ সেটি চালু না করায় রাতে ও দিনে রোগীদের চরম ভোগান্তিতে থাকতে হয়। প্রায় প্রতি সপ্তাহের শনিবারে পিরোজপুরের বিদ্যুৎ সরবরাহকারী প্রতিষ্ঠান তাদের বৈদ্যুতিক লাইনের জরুরী সংস্কারের জন্য সকাল ৮ টা থেকে বিকেল ৪ টা পর্যন্ত বিদ্যুৎ বন্ধ রাখে। এদিকে জেলা হাসপাতালে বিকল্প কোন বিদ্যুতের ব্যবস্থা না থাকায় রোগীরা পড়েছে চরম বিপদে। বিশেষ করে হাসপাতালে ভর্তি থাকা অসুস্থ বৃদ্ধ ও শিশুরা অতিরিক্ত গরমে আরো বেশি অসুস্থ হয়ে পড়ছে।
হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ জানায় ২০০৪ সালে জেলা হাসপাতালে প্রথম জেনারেটর আনা হলে কয়েকদিনের মধ্যেই জেনারেটরটি চালানো বন্ধ রাখা হয়। সেই থেকে আজ পর্যন্ত প্রায় ১৪বছর ধরে হাসপাতালে জেনারেটর থাকার পরেও চালানো সম্ভব হচ্ছে না তার এক মাত্র কারন হলো তেল। ১৯৯১ সালে প্রথম ৫০ শয্যা নিয়ে এ হাসপাতালটি নির্মিত হলে ২০০১ সালে এটিকে ১০০ শয্যায় উন্নিত করা হয়। ২০২০ সালে সদর হাসপাতাল থেকে পিরোজপুর জেলা হাসপাতালে রুপান্তর করে ২৫০ শয্যায় উন্নিত করা হলে এর কাজ চলমান রয়েছে। কিন্ত শয্যা বাড়ানো হলেও বৈদ্যুতিক জেনারেটের ব্যবস্থা চালু করার কোন উদ্যোগ নেয়া হয়নি।
হাসপাতালে ভর্তি রোগীরা অভিযোগ করে জানান, দেশের সকল হাসপাতালে রোগীদের জন্য বৈদ্যুতের বিকল্প ব্যবস্থা থাকলেও পিরোজপুর জেলা হাসপাতালে কোন ব্যবস্থা নাই। বিদ্যুৎ চলে গেলে ডাক্তার ও নার্সেদের রুমে আইপিএস থাকার কারণে তাদের কোন সমস্যা হয় না। কিন্তু রোগীদের জন্য রাতে ওয়ার্ডে একটা লাইটেরও ব্যবস্থা নাই। রাতে ও দিনে অতিরিক্ত গরমে চিকিৎসাধীন রোগীরা আরো অসুস্থ হয়ে পড়ে। রোগীরা আরো অভিযোগ করে বলেন, সরকারের উন্নয়ন কার্যক্রমের ভাবমূর্তি নষ্ট করার জন্যই হাসপাতালের একটি মহল বৈদ্যুতিক জেনারেটর না চালিয়ে সরকারের দুর্নাম করছে।

এ বিষয়ে পিরোজপুরের সিভিল সার্জন ও জেলা হাসপাতালের তত্ববধায়ক ডা. মো. হাসনাত ইউসুফ জাকি জানান হাসপাতালের যে বৈদ্যুতিক জেনারেটর আছে তার তৈল খরচ অনেক বেশি এছাড়া এটা অনেক দিন চালানো হয় না বিধায় অকেজো হয়ে আছে। তাই সেটা চালানো সম্ভব নয়। তবে রোগীদের এই ভোগান্তির দূর করতে একটি ছোট জেটারেটর কেনার প্রস্তুতি চলছে।


একই ধরনের আরও খবর
error: Content is protected !!
error: Content is protected !!