• মঙ্গলবার, ২১ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৪:৫০ অপরাহ্ন
  • [gtranslate]
শিরোনামঃ
পিরোজপুরে জেলা তথ্য অফিসের আয়োজনে “এসো মুক্তিযুদ্ধের গল্প শুনি” এবং বঙ্গবন্ধুর জীবন ও কর্ম ভিত্তিক কুইজ প্রতিযোগিতা পিরোজপুরে করোনায় ক্ষতিগ্রস্ত ৩ শত পরিবারকে প্রধানমন্ত্রীর মানবিক সহায়তার টাকা দিলেন ডিসি দুদকের করা পৃথক ২ মামলায় মেয়র দম্পত্তিকে দুদক তদন্ত প্রতিবেদন দাখিল পর্যন্ত জামিন দিয়েছে আদালত : জনসমূদ্রে পিরোজপুর পিরোজপুরের ইন্দুরকানীতে গৃহবধুকে ধর্ষণ চেষ্টার অভিযোগ সবুজ ধারা প্রপার্টিজের বর্ষপূর্তি অনুষ্ঠিত পিরোজপুরের ইন্দুরকানীতে ইউপি সদস্যের বাড়ীতে ডাকাতির মামলায় গ্রেফতার-১ পিরোজপুরের ইন্দুরকানীতে আগুন লেগে ২টি দোকান পুড়ে ছাই ৩০লক্ষ টাকার ক্ষয়ক্ষতি জাতীয় প্রাথমিক সহকারী শিক্ষক ফাউন্ডেশন কাউখালী উপজেলার নবগঠিত কমিটির অনুমোদন পিরোজপুরে মৃত স্বামীর সহায়-সম্পত্তি গ্রাস করার চেষ্টায় প্রতিপক্ষের মারপিট নির্যাতন থেকে রেহাই পেতে স্ত্রীর সংবাদ সম্মেলন পিরোজপুরে বিএনপির ৪৩ তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী উপলক্ষে আলোচনা সভা ও দোয়া মাহফিল

ভারতে শুধু এপ্রিল মাসেই চাকরি হারিয়েছেন ১২ কোটি মানুষ

admin / ৩৭০ জন দেখেছেন
প্রকাশের সময়ঃ শুক্রবার, ২৯ মে, ২০২০

করোনা ভাইরাস মহামারির কারণে বিশ্বের অন্তত ৪ কোটি ৯০ লাখ মানুষ চরম দারিদ্র্যের মধ্যে নিমজ্জিত হওয়ার আশঙ্কা রয়েছে। বিশ্ব ব্যাংকের পূর্বাভাস অনুযায়ী, চলতি বছর ভারতের প্রায় ১ কোটি ২০ লাখ নাগরিক চরম দারিদ্র্যের মুখে পড়বে। তাদের দৈনিক আয় হবে এক দশমিক নয় ডলারের কম।

বৃহস্পতিবার (২৮ মে) সংবাদমাধ্যম এনডিটিভি জানায়, বেসরকারি গবেষণা প্রতিষ্ঠান সেন্টার ফর মনিটরিং ইন্ডিয়ান ইকোনোমির তথ্য অনুযায়ী, শুধু এপ্রিল মাসেই চাকরি হারিয়েছেন প্রায় ১২ কোটি ২০ লাখ ভারতীয় নাগরিক। এর মধ্যে সবচেয়ে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছেন দিনমজুর, নির্মাণশ্রমিক, ঠেলাগাড়িচালক, রিকশাচালক এবং ফেরিওয়ালা, ফুটপাতের দোকানদারসহ ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীরা।

২০১৪ সালে হতদরিদ্রদের দারিদ্র্যমুক্ত করার প্রতিশ্রুতি দিয়ে ক্ষমতায় এসেছিলেন ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। করোনা ভাইরাসের কারণে লকডাউনে তার এ পরিকল্পনা ঝুঁকিতে পড়েছে।

উন্নয়ন খাত উপদেষ্টা প্রতিষ্ঠান আইপিই গ্লোবালের ব্যবস্থাপনা পরিচালক অশ্বজিত সিং বলেন, ‘দারিদ্র্য দূরীকরণে ভারতীয় সরকারের কয়েক বছরের প্রচেষ্টা মাত্র কয়েক মাসের কারণে মুখ থুবড়ে পড়তে পারে। এবছর কর্মসংস্থান পরিস্থিতির উন্নতি হওয়ার সম্ভাবনা নেই। ভাইরাসের চেয়ে ক্ষুধায় আরও বেশি মানুষের মৃত্যু হতে পারে।’

সিং জানান, ইউনাইটেড ন্যাশন্স ইউনিভার্সিটির এক গবেষণার ফলাফল অনুযায়ী, স্বল্প মধ্যম আয়ের দেশের জন্য বিশ্ব ব্যাংক নির্ধারিত দারিদ্র্যসীমার নিচে নেমে যেতে পারেন প্রায় ১০ কোটি ৪০ লাখ ভারতীয় নাগরিক। তাদের দৈনিক আয় হবে তিন দশমিক দুই ডলারেরও কম।

বর্তমানে ভারতের ৮১ কোটি ২০ লাখ অর্থাৎ ৬০ শতাংশ মানুষ দারিদ্র্যে বসবাস করছেন। করোনা ভাইরাসের কারণে এ সংখ্যা বেড়ে হবে ৯২ কোটি অর্থাৎ ৬৮ শতাংশ। এতে দারিদ্র্যের হার গত এক দশকেরও বেশি সময়ের মধ্যে সর্বাধিক হবে।

গবেষকরা জানান, লকডাউনে ভারতের ৮০ শতাংশ পরিবারের আয় কমেছে এবং কোনো ধরনের সহায়তা ছাড়া তাদের অনেকের পক্ষেই আর বেশি দিন জীবিকা নির্বাহ করা সম্ভব নয়।

এদিকে জন্স হপকিন্স ইউনিভার্সিটির তথ্য অনুযায়ী, এশিয়ায় করোনা ভাইরাস মহামারির কেন্দ্র ভারত। দেশটিতে শনাক্ত কোভিড-১৯ রোগীর সংখ্যা ১ লাখ ৫৮ হাজার ৪১৫ এবং তাদের মধ্যে মারা গেছেন ৪ হাজার ৫৩৪ জন।


একই ধরনের আরও খবর
error: Content is protected !!
error: Content is protected !!